প্রথম বিশ্বযুদ্ধ

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ

উগ্র জাতীয়তাবাদ, সাম্রাজ্যবাদী দ্বন্দ্ব, অস্ত্র প্রতিযোগিতা, আন্তর্জাতিক নৈরাজ্য ইত্যাদি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের মূল কারণ হলেও এর সূচনা ঘটে অস্ট্রিয়ার যুবরাজ ফার্ডিন্যান্ডের হত্যার মধ্য দিয়ে। ১৯১৪ সালের ২৮ জুন অস্ট্রিয়ার যুবরাজ ফার্ডিন্যান্ড ও তার স্ত্রী সোফিয়া বসনিয়ার রাজধানী সারায়েভোতে সফরকালে আততায়ীর গুলিতে নিহত হন। অস্ট্রিয়া এই হত্যাকান্ডের সূত্র ধরে ঠিক একমাস পর ২৮ জুলাই সার্বিয়াকে দায়ী করে সার্বিয়ার বিরূদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে। এ যুদ্ধ সমগ্র বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে এবং বিশ্বযুদ্ধের আকার ধারণ করে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয় ২৮ জুলাই, ১৯১৪ সালে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয় ১১ নভেম্বর, ১৯১৮ সালে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ যে নামে খ্যাত — The Great War. যুদ্ধের প্রধান কারণ ছিল জার্মানদের উগ্র জাতীয়তাবাদ নীতি।

অক্ষ শক্তিঃ জার্মানি, অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরি, তুরস্ক, বুলগেরিয়া।

মিত্র শক্তিঃ সার্বিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, ফ্রান্স, ইতালি, জাপান, বেলজিয়াম।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান

  • রাশিয়ার জার—দ্বিতীয় নিকোলাস।
  • জার্মান কাইজার—দ্বিতীয় উইলিয়াম।
  • ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী—হেনরি আসকুইথ ও লয়েড জর্জ।
  • ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী—জর্জ ক্লেমেন শো।
  • ইতালির প্রধানমন্ত্রী—ভিট্টোরিও আর্লান্ডো।
  • যুক্তরাষ্ট্রের প্রসিডেন্ট—উড্রো উইলসন।
অক্ষ শক্তি

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভিন্ন তথ্যে

  • প্রথম বিশ্বযুদ্ধে মিত্রশক্তির সামরিক বাহিনীর প্রধান ছিলেন জেনারেল ফচ।
  • প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র যোগদেয় ৬ এপ্রিল ১৯১৭ (জার্মানির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার মাধ্যমে)।
  • জার্মানি যুক্তরাষ্ট্রের যে যুদ্ধ জাহাজটি ডুবিয়ে দেয় তার নাম লুুসিতানিয়া।
  • ‘লীগ অব নেশনস’ গঠন করা হয় প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রেক্ষিতে।
  • প্রথম বিশ্বযুদ্ধে জার্মানি আত্মসমর্পণ করে ১১ নভেম্বর ১৯১৮ সালে।
  • বিশ্বযুদ্ধ বিরতি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ১১ নভেম্বর ১৯১৮, প্যারিসে।
  • আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তি হয় ১৯১৯ সালে ভার্সাই চুক্তির মাধ্যমে।
  • প্রথম বিশ্বযুদ্ধ বিরতি চুক্তি সম্পাদিত হয় জার্মানি ও মিত্রপক্ষের মধ্যে।
  • ভার্সাই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় ২৮ জুলাই ১৯১৯, ফ্রান্সের ভার্সাই নগরীতে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ফলাফল

পিস ডিক্রিঃ ভ্লাদিমির ইলিচ উলিয়ানভ লেনিন যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য ১৯১৭ সালে এক কৃষক সম্মেলনে যুদ্ধ থেকে রাশিয়ার নাম প্রত্যাহারের যে প্রস্তাব আনেন তাই পিস ডিক্রি হিসেবে পরিচিত। উড্রো উইলসন এই প্রস্তবের আলোকেই ১৪ দফা ঘোষণা করে।

বেলফোর ঘোষণাঃ বেলফোর ঘোষণা হলো, ১৯১৭ সালের ২ নভেম্বর ব্রিটিশ ইহুদি সম্প্রদায়ের নেতা ব্যারন রথচাইল্ডের কাছে তৎকালীন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আর্থার জেমস বেলফোরের লেখঅ একটি চিঠি, যা ইতিহাসে ‘বেলফোর ঘোষণা’ নামে পরিচিত। এত ফিলিস্তিনে ইহুদিদের জন্য একটি জাতি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার করা হয় । চিঠির মূল কপিটি ব্রিটিশ লাইব্রেরীতে সংরক্ষিত আছে। ১৯৪৮ সালের ১৪ মে ফিলিস্তিনিদের মাতৃভূমিতে অবৈধভাবে ইসরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়।

চৌদ্দ দফাঃ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময় জার্মান সরকার যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি উড্রো উইলসনকে ১৯১৮ সালের অক্টোবর মাসে যুদ্ধ বিরতির আহ্বান জানায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ১৯১৮ সালের ৮ জানুয়ারি মার্কিন কংগ্রেসে রাষ্ট্রপতি উড্রো উইলসন ‘চৌদ্দ দফা’ ঘোষণা করেন। চৌদ্দ দফার ১নং দফা ছিল “শান্তিপূর্ণ ও উন্মুক্ত কুটনীতি” এবং ১৪ নং বা শেষ দফা ছিল “জাতিপুঞ্জ প্রতিষ্ঠা”। এর ধারাবাহিকতায় ১৯১৯ সালের ২৮ জুন স্বাক্ষরিত ভার্সাই  চুক্তির ফলাফলস্বরূপ ‘জাতিপুঞ্জ’ প্রতিষ্ঠিত হয়।

২য় ভার্সাই চুক্তি

২য় ভার্সাই চুক্তিঃ প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শেষে ১৯১৯ সালের ২৮ জুন ফ্রান্সের ভার্সাই প্রাসাদের হল অব সিররে জার্মানি এবং মিত্র শক্তিদের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় বা ভার্সাই চুক্তি নামে পরিচিত।

মহামন্দাঃ প্রথম বিশ্বযুদ্ধের প্রভাবে ১৯২৯ থেকে ১৯৩৯ সাল পর্যন্ত মার্কিন শেয়ার বাজারে যে অর্থনৈতিক ধ্বস নামে তাই ইতিহাসে মহামন্দা নামে পরিচিত।

যুগোস্লাভিয়ারাষ্ট্র গঠনঃ প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর খনিজ সম্পদের পরিপূর্ণ সামরিক শক্তিহীন বলকান অঞ্চলের রাষ্ট্রগুলো নিরাপত্তাহীনতায় থাকতো । আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ১৯১৮ সালে বলকান অঞ্চলের সামরিক শক্তিহীন ক্ষুদ্র ৭টি রাষ্ট্র নিয়ে একত্রে  Socialist Federal Republic of Yugoslavia সা যুগোস্লাভিয়া নামে একটি রাষ্ট্র গঠন করে দেয়। ১৯৯২ সালে তা আবার ভেঙ্গে দিয়ে প্রথমে ৫টি এবং পরবর্তীতে আরও দুটিসহ মোট ৭টি প্রজাতন্ত্র করা হয়।

### অনলাইন কুইজ প্রতিযোগীতায় অংশ নিতে ভিজিট করুন আমাদের ফেইসবুক পেইজঃ https://www.facebook.com/quizolympiad